• রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ১১:৩৭ পূর্বাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনাম
ফুটবলের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে সরকার: প্রধানমন্ত্রী কোটাবিরোধীদের আন্দোলন থামানো উচিত : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঠাকুরগাঁও জেলাকে শিশুশ্রমমুক্ত ঘোষণা প্রক্রিয়াধীন : শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী নোয়াখালীর মেঘনায় অজ্ঞাত যুবকের লাশ রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরুতে ইতিবাচক মিয়ানমার শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে স্বাধীনতাবিরোধীরা ভর করেছে : ওবায়দুল কাদের ক্ষমতাচ্যুত হলেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী সরকার চাইলে কোটা পরিবর্তন-পরিবর্ধন করতে পারবে : হাইকোর্ট ছাত্রদের বোঝা উচিত, রায় যখন নেই তাহলে আন্দোলন কেন? ফল সেমিস্টারের শিক্ষার্থীদের স্বাগত জানাল ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

পিটিআই-সমর্থিত বিজয়ী প্রার্থীদের ভাগিয়ে নিচ্ছে নওয়াজের দল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : / ৫৯ Time View
Update : রবিবার, ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

সবুজবাংলা২৪ডটকম, ঢাকা : পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের নির্বাচনে শতাধিক আসনে জয় পেয়েছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) সমর্থিত প্রার্থীরা। নির্বাচনে কোনও দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় এখন জোট সরকার গঠনে ব্যাপক দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে। সরকার গঠনের দৌড়ে এগিয়ে থাকা দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ নেতৃত্বাধীন রাজনৈতিক দল পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) ও বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) মাঝে ব্যাপক দর কষাকষি চলছে।
এর মাঝেই ইমরান খানের দলের সমর্থনে নির্বাচনে জয়ী হওয়া প্রার্থীদের নিজ নিজ দলে টানতে বিভিন্ন ধরনের প্রলোভন দিচ্ছে পিএমএল-এন ও পিপিপি। নির্বাচনের আগে পিটিআইয়ের নিবন্ধন বাতিল করায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিপুল আসনে জয় পেয়েছেন দলটির সমর্থিত প্রার্থীরা। পাকিস্তানের সংবিধান অনুযায়ী, ফল প্রকাশের তিন দিনের মধ্যে কোনও নিবন্ধিত দলে যোগদান অথবা সংসদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে থাকতে পারবেন তারা।
কিন্তু জোট সরকার গঠন করা নিয়ে পিএমএল-এন ও পিপিপির মাঝে এখনও সমঝোতা না হওয়ায় পিটিআই-সমর্থিত অন্তত ১৫ থেকে ২০ জন স্বতন্ত্র প্রার্থীকে দলে ভেড়ানোর জন্য যোগাযোগ শুরু করেছে পিএমএল-এন। ইতিমধ্যে পিটিআই-সমর্থিত বিজয়ী এক প্রার্থী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে দেওয়া এক পোস্টে পিএমএল-এনে যোগ দেওয়ার তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
রোববার দেশটির সংবাদমাধ্যম ডনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পিটিআই-সমর্থিত প্রথম বিজয়ী প্রার্থী হিসেবে জাতীয় পরিষদের লাহোরের এনএ-১২১ আসনের ওয়াসিম কাদির পিএমএল-এনে যোগ দিয়েছেন। পিএমএল-এনের এক্স অ্যাকাউন্টে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে দলটির জ্যেষ্ঠ ভাইস-প্রেসিডেন্ট মরিয়ম নওয়াজের পাশে দাঁড়িয়ে ওয়াসিমকে বলতে শোনা যায়, ‘‘আমি আমার ঘরে ফিরেছি।’’
প্রাথমিকভাবে দলটি কাদিরকে পিটিআই-সমর্থিত প্রার্থী হিসাবে বর্ণনা করে এক্স পোস্টে এই ঘোষণা দিয়েছিল। কিন্তু কয়েক মিনিটের মধ্যে সেই ভিডিওটি এক্স অ্যাকাউন্ট থেকে ডিলিট করে দেওয়া হয়। পরে নতুন এক ভিডিওতে ওয়াসিম কাদিরকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে উল্লেখ করে তার পিএমএল-এনে যোগদানের তথ্য জানানো হয়।
উল্লেখ্য, পিটিআই-সমর্থিত ওয়াসিম কাদির এনএ-১২১ আসনে পিএমএল-এনের প্রার্থী শেখ রোহেল আসগরকে হারিয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।
এদিকে, নির্বাচনের তিনদিন পর পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচন কমিশন চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করেছে রোববার। নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা অনুযায়ী, বৃহস্পতিবারের নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ১০১টি আসন জিতেছেন। যার মধ্যে ৯৬টি আসনে জিতেছেন ইমরান খানের পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। অন্যদিকে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) ৭৫টি আসনে জয় পেয়েছে।
এ ছাড়া প্রয়াত সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর ছেলে বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির পাকিস্তান পিপলস পার্টি ৫৪টি আসনে জয় পেয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। করাচি-ভিত্তিক দল মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট (এমকিউএম) ১৭টি আসন জিতেছে।
পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের ২৬৬টি আসনে গত ৮ ফেব্রুয়ারি ভোট অনুষ্ঠিত হয় এবং সাধারণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের জন্য কোনও দল বা জোটকে ১৩৪টি আসন পেতে হবে। একজন প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে খাইবার-পাখতুনখাওয়া প্রদেশের একটি আসনের ভোট বাতিল করা হয়েছে এবং পাঞ্জাবের অন্য একটি আসনের ফলাফল স্থগিত করা হয়েছে।
কোনও দলই সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় দেশটিতে সরকার গঠনের জন্য রাজনৈতিক দলগুলো জোট গঠনে মরিয়া প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। তবে এখন পর্যন্ত বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির সাথে জোট করাই পিএমএল-এনের প্রথম বিকল্প। কিন্তু পিপিপি জোট সরকার গঠনের ক্ষেত্রে পিএমএল-এনের কাছে প্রধানমন্ত্রীর পদ দাবি করেছে।

বিজ্ঞাপন

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

Categories